Tuesday, February 25, 2020

দামুড়হুদা উপজেলা আদৌ ও কি ভিক্ষুক মুক্ত? দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে ভিক্ষুক



নিজস্ব প্রতিবেদক  :- আরো একবার প্রশাসনের একটি ভাল উদ্দ্যোগ  ব্যর্থ হতে চলেছে। অনেক কয়েক বছর আগে  সরকার নিরক্ষরমুক্ত চুয়াডাঙ্গা ঘোষনা করলেও তা যেমন হয়নি তেমনি অনেক ঢাকঢোল পিটিয়ে চুয়াডাঙ্গা জেলা সহ দামুড়হুদা উপজেলাকে ভিক্ষুকমুক্ত করলেও বাস্তবে তা হয়নি। দিন দিন নতুন নতুন ভিক্ষুক দেখা যাচ্ছে এলাকাতে।এখন ও দামুড়হুদা উপজেলার সদর সহ কার্পাসডাঙ্গা বাজার ও উপজেলার গ্রাম গুলোতে  ভিক্ষুকদের ভিক্ষা করতে দেখা যায়।  সোমবার/ বৃহস্পতিবার  সকাল থেকেই কার্পাসডাঙ্গা বাজার সহ গ্রামের মধ্যে  শতাধিক ভিক্ষুককে ভিক্ষা করতে দেখা যায়। ভিক্ষুকমুক্ত কার্যক্রমের সময় বাজার ঘাটে ভিক্ষুক কম দেখা গেলেও বর্তমানে আগের ন্যায়  দিন দিন নতুন নতুন ভিক্ষুকদের দেখা যাচ্ছে। কার্পাসডাঙ্গা বাজারে কয়েকজন ভিক্ষুকের সাথে দেখা হয়। উপজেলার সদর ইউনিয়নের  চিৎলা গ্রামের মনোয়ারা খাতুন (২৫), গোবিন্দহুদার সাবিনা বেগম(৫০) কুড়ুলগাছি ইউনিয়নের ঠাকুরপুর গ্রামের হালিমা বেগম(৪৫) কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের পিরপুরকুল্লা গ্রামের আফসার আলী (৫৫)ও কার্পাসডাঙ্গা গ্রামের আব্দুল গাফফার(৫০) ও কোমরপুর গ্রামের আব্দুস সাত্তারের  সাথে কথা হলে তারা জানান কোন কোন ভিক্ষুককে সামান্য সাহায্য পেয়েছে, ঘর পেয়েছি আবার কর্মসৃজন কর্মসৃচিতে কারও কারও নাম দেয়া হয়েছে, কিছু সংখ্যক ভিক্ষুক কে পূর্নবাসন করা হয়েছে। এদিকে দামুড়হুদা সদর ইউনিয়নের গোবিন্দহুদা গ্রামের সাবিনা বেগম অভিযোগ করে বলেন  আমাদের নামের তালিকা করে নিযে গেলেও  কোন সাহায্য সহযোগিতা এখনো পায়নি।জীবিকা নির্বাহের জন্য বাধ্য হযে ভিক্ষা করছি। এবিষযে কার্পাসডাঙ্গা ইউপি চেয়ারস্যান খলিলুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি প্রতিবেদককে বলেন আমরা আমাদের মত চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি, তাদের কে বিভিন্ন সরকারি সহায়তা দেয়ার  পর ও ভিক্ষাবৃত্তি চালিয়ে যাচ্ছে। নাম প্রকাশে অনিইচ্ছুক এক ব্যক্তি জানান কিছু কিছু ভিক্ষুকের সাথে সরকার তোমার সাহায্যে সহযোগিতা করছে তোমরা ভিক্ষা করছো কেন ,  কথা বললে ভিক্ষুকরা অন্য কথা শুনিয়ে দেয়।  এ বিষয়ে দামুড়হুদা উপজেলা সহকারি (ভূমি) কমিশনার মো: মহিউদ্দিন জানান - ভিক্ষুক মুক্ত করার জন্য আমরা নতুন - পুরাতন ভিক্ষুকদের নামের তালিকা সংগ্রহ করছি। বর্তমান সরকার অসহায় দু:স্হ  পরিবারের পাশাপাশি ভিক্ষুকদের পূর্নবাসনের  ব্যবস্হা গ্রহন করছেন। 

0 comments: