Sunday, February 9, 2020

রবি টিভি পরিবারের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ দলকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন




 দক্ষিণ আফ্রিকার পচেফস্ট্রুমে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের স্নায়ুক্ষয়ী ফাইনালে চারবারের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ। ইতিহাস গড়ে এই প্রথম বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করাই রবি টিভি পরিবারের পক্ষ থেকে  বাংলাদেশ দলকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।
রবিবার দক্ষিণ আফ্রিকার পচেফস্ট্রুমে ১৭৭ রানে ভারতকে থামিয়েছিল বাংলাদেশ। তানজিদ হাসান ও পারভেজ হোসেনের উদ্বোধনী জুটিতে শুরুটা হয় প্রত্যাশামতো। কিন্তু ভারতের স্পিনার রবি বিশনয়ের ঘূর্ণিতে হঠাৎ ওলট-পালট বাংলাদেশ।
প্রথম থেকে শুরুটা ভালো ছিল বাংলাদেশের, ওই ওভারে দলের ১৩ রান সংগ্রহে তানজিদ দুটি চার মারেন। পরের ওভারে একটি বাউন্ডারি মারেন পারভেজ। নবম ওভারের দ্বিতীয় বলে একমাত্র ছয় মেরে দলকে পঞ্চাশের ঘরে নেন তানজিদ। কিন্তু দলীয় স্কোর হাফসেঞ্চুরি হতেই জুটি ভাঙে তাদের। রবি বিশনয়ের বলে কার্তিক ত্যাগীর ক্যাচ হন তানজিদ, ২৫ বলে করেন ১৭ রান।
রবি বিশ্নয়ের ঘূর্ণিতে দ্রুত বিদায় নেন আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান মাহমুদুল হাসান জয় (৮), তৌহিদ হৃদয় (০) ও শাহাদাত হোসেন। দলের দুঃসময়ে ‘রিটায়ার্ড হার্ট’ হয়ে ফিরে যান আরেক ওপেনার ইমন।
৪ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ যখন ধুঁকছে তখন অধিনায়কের মতোই দায়িত্ব নিজ কাঁধে তুলে নেন আকবর। কিন্তু তাকে সঙ্গ দিতে পারেননি শামীম হোসেন (৭) ও অভিষেক দাস (৫)। পরে পুনরায় ব্যাট হাতে ফিরে আসেন ইমন।
আকবর-ইমনের ৪১ রানের জুটি ভাঙেন জসওয়াল। ৭৯ বলে ৭ চারে ৪৭ রান করে আকাশ সিংয়ের হাতে বন্দী হন ইমন। এরপর রাকিবুল হাসানকে নিয়ে মাটি কামড়ে পড়ে থাকেন আকবর।
ধীরে ধীরে যখন বাংলাদেশ জয়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল তখন ৪১তম ওভারে বৃষ্টি নেমে আসে। যুবা টাইগারদের রান তখন ৭ উইকেটে ১৬৩। ৫৪ বলে দরকার তখন মাত্র ১৫ রান। ডার্ক লুইস পদ্ধতিতে তখনও বাংলাদেশ ১৮ রানে এগিয়ে ছিল।
বৃষ্টি শেষে পুনরায় ব্যাটিংয়ে নামে বাংলাদেশ। ডিএল পদ্ধতিতে তখন যুব টাইগারদের দরকার হয় ৩০ বলে ৭ রান। সেই রান নিতে কোনো বেগ হতে হয়নি বাংলাদেশকে। আকবরের ৭৭ বলে ৪ চার ও ১ ছক্কায় ৪৩ এবং রাকিবুলের ৯ রানের ইনিংসে ভর করে অনায়াসেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় যুবা টাইগাররা।
এর আগে ভারতকে ৪৭.২ ওভারে ১৭৭ রানে অলআউট করে বাংলাদেশ। শরিফুল ইসলাম দলীয় ১৫৬ রানে জয়সাওয়ালকে ফেরানোর পর রানের লাগাম টেনে ধরে তারা। ২১ রানে শেষ ৭ উইকেট হারায় ভারত।
বাংলাদেশের পক্ষে অভিষেক দাস সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নেন। দুটি করে পান তানজিম হাসান সাকিব ও শরিফুল।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
ভারত: ৪৭.২ ওভারে ১৭৭ (জয়সাওয়াল ৮৮, সাক্সেনা ২, তিলক ৩৮, প্রিয়ম ৭, জুরেল ২২, বীর ০, আনকোলেকার ৩, বিশনয় ২, সুশান্ত ৩, কার্তিক ০, আকাশ ১; শরিফুল ২/৩১, সাকিব ২/২৮, অভিষেক ৩/৪০, রাকিবুল ১/২৯)
বাংলাদেশ: ৪২.১ ওভারে ১৭০/৭ (৪৬ ওভারে লক্ষ্য ১৭০) (পারভেজ ৪৭, তানজিদ ১৭, মাহমুদুল ৮, তৌহিদ ০, শাহাদাত ১, আকবর ৪৩*, শামীম ৭, অভিষেক ৫, রাকিবুল ৯*; বিশনয় ৪/৩০, সুশান্ত ২/২৫, জয়সাওয়াল ১/১৫)
ফল: ডি/এল এ বাংলাদেশ ৩ উইকেটে জয়ী
ম্যাচসেরা: আকবর আলী
টুর্নামেন্ট সেরা: যশস্বী জয়সাওয়াল

0 comments: