Thursday, February 20, 2020

চুয়াডাঙ্গা আলমডাঙ্গায় ঘরে রহস্যজনক আগুন

চুয়াডাঙ্গা,  আলমডাঙ্গার পাইকপাড়া গ্রামের জাহিদ হোসেনের বাড়ির একটি ঘরে আগুন লাগানোর ঘটনা ঘটেছে। ১৯ ফেব্রুয়ারী বুধবার দিনগত রাতে আগুনের ঘটনা ঘটে। ঘরটির ভেতরের খাটের বিছানায় রাখা কাথা-কাপড় পুড়ে গেছে।
জাহিদ হোসেন আগুন লাগানোর ঘটনায় ব্যবসায়িক ফ্যাসাদে জড়িয়ে পড়া তার পূর্ব শত্রু একই গ্রামের হাফিজুর রহমানকে দোষ দিচ্ছেন। তবে প্রতিবেশীরা আগুনের ঘটনাটি রহস্যজনক হিসেবে দেখছেন বলে জানা গেছে।
জানা যায়, আইলহাঁস ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামের মৃত আমির মন্ডলের ছেলে হাফিজুর রহমানের সাথে ২০০৮ সালের দিকে ব্যবসা শুরু করেন একই গ্রামের মৃত পচা মালিথার ছেলে জাহিদ হোসেন। ব্যবসায়ে পূঁজি বানাতে তারা ব্রাক ব্যাংক থেকে ৪ লাখ টাকা লোন নেন। টাকা তোলেন হাফিজুর রহমান। এতে গ্যারান্টার হন জাহিদ হোসেন। এক সময় তাদের ব্যবসায় ধস নামলে ব্যাংকের টাকা তারা শোধ করতে পারেন না। ফলে ব্যাংক তাদের নামে ঢাকা জজ কোর্টে মামলা করে দেয়। ওই মামলায় হাফিজুর রহমান ঢাকায় গিয়ে জামিন নিলেও জাহিদকে জেল হাজতে যেতে হয়।চ

জানা যায়, জেল থেকে বেরিয়ে জাহিদ হেসেন ব্যাংকের পুরো ৪ লাখ টাকা হাফিজুর রহমানের কাছে দাবি করেন। কিন্ত হাফিজুর রহমান ওই টাকা দিতে রাজি হন না। তার বর্ননায় আদালত থেকে জাহিদকে জামিন করে বের করতে সাড়ে ৪ লাখ টাকা খরচ হয়ে যায়। এই টাকা দেওয়া না দেওয়াকে কেন্দ্র করে দু‘জনের ভেতরে তীক্ত সম্পর্কের জন্ম নেয়। চলমান তীক্ত সম্পর্কের ভেতরে জাহিদ হোসেনের ঘরে আগুন লাগানোর ঘটনা ঘটে।
হাফিজুর রহমান জানান, আমি দীর্ঘদিন গ্রামের বাড়িতে থাকি না। শত্রæতামূলকভাবে আমাকে এবং আমার পরিবারকে ফাঁসাতে জাহিদ হোসেন নিজে তার ঘরে আগুন লাগানোর ঘটনা ঘটিয়েছে। তিনি প্রশাসনের কাছে ন্যায় বিচার কামনা করেন।
এ ব্যাপারে থানার অফিসার ইনচার্জ সৈয়দ আশিকুর রহমান জানান, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। আগুন লাগানোর ঘটনাটি রহস্যজনক মনে হয়েছে। তিনি বলেন, বাইরের কেউ আগুন দিলে ঘরের বেড়া পর্যাপ্ত পুড়ে যাওয়ার কথা। কিন্ত বেড়া পুড়েছে অল্প বেশী পুড়েছে বিছানায় থাকা কাথা। তবে ঘটনা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

0 comments: