Sunday, April 19, 2020

ত্রান চুরির অমানুষগুলো কবে মানুষ হবে


মোস্তাফিজ কচি :-- বৈশ্বিক মহামারিতে রূপ নেওয়া করোনাভাইরাসের কারণে বাংলাদেশ এখন কার্যত অচল। সেই সঙ্গে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন দিনমজুরসহ অনেকেই। অথচ এদের একদিন কাজ না করলে এদের ঘরে আগুন জ্বলে না, না খেয়েই থাকতে হয় পরিবার নিয়ে। তবে সরকারিভাবে বা বেসরকারিভাবে সহায়তা প্রদান করছেন অনেকেই। বেসরকারিভাবে কিছুটা সুষ্ঠু বণ্টন হলেও, সরকারের কঠোর অবস্থানের মধ্যেও সরকারিভাবে সহায়তা নিয়ে ববরাবরই কিছু অমানুষ তাদের স্বার্থ উদ্ধারে লুটেপুটে খাচ্ছে এসকল অসহায় অনাহারদের খবারগুলো। চালচুরি, গমচুরি আর কম্বলচুরি খুঁজলে অহরহই পাওয়া সম্ভব এ দেশে। তাই বলে এই দুর্দিনে অনাহারে থাকা মানুষগুলোর ত্রাণ চুরি!! স্বাধীনতার স্হপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান  ১৯৭৩ সালে আফসোস করে বলেছিলেন “সাত কোটি বাঙালির আট কোটি কম্বল আমারটা গেল কই?” ১৯৭৩ থেকে আজ ২০২০ এরপরেও সেই অমানুষগুলো মানুষ হতে পারলো না। অসহায় দুস্থ মানুষদের রক্ত চুষে খেতেই হবে ওদের।ত্রাণের দেয়া চাল, ত্রাণের দেয়া অসহায় মানুষদের অনাহারের অন্ন লুটেপুটে নিতেই হবে।কবে মানুষ হবে ওরা!দেশের এ প্রাদুর্ভাবে অসহায়দের দেয়া সরকারি ত্রাণ চুরির মহা উৎসব দেখা যাচ্ছে পত্রিকার পাতা খুল্লেই।সরকারের কঠোর অবস্থানের মধ্যেও অসহায়দের ত্রাণ চুরি থামছেনা।বিবেকহীনতা এতটাই নিচে নেমে গিয়েছে যে কারো মুখের এক বেলার খাবারটা থাবা মেরে নিতেও একটিবার বুক কাপলো না।ত্রাণ চুরির এ অমানুষগুলো মানুষ হবে কবে! অথচ অনেকেই নিজের স্বার্থ বিলীন করে অনাহারদের মুখে একমুঠো খাবার তুলে দিচ্ছেন আর তার মধ্যেই খুঁজে পাচ্ছেন আত্মতুষ্টি।আসুন দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে সরকারের ত্রাণকার্যক্রমে সহযোগিতা করে সুষ্ঠু বন্টনের মাধ্যমে পৌঁছে দেই অনাহারদের কাছে।আর এসময় ত্রাণ চুরির মানুষরূপী অমানুষগুলোকে প্রতিহত করে সোনার বাংলার অসহায় মানুষদের পাশে দাঁড়িয়ে সুখ-দুঃখের ভাগিদার হই।

0 comments: