Saturday, April 4, 2020

দামুড়হুদায় ভূয়া দারোগাসহ আটক-২ : গনধোলায় শেষে পুলিশে সোপর্দ

 চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় পুলিশের এসআই পরিচয় দিয়ে কয়েকটি মুদিদোকানিরেক ভয়ভীতি দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নেয়ার সময় আসমত আলী নামের (৩১) এক ভূয়া দারোগা ও তার সহযোগি আলামিনকে (২৮) আটক করে গনধোলায় শেষে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় জনগন। আটক ভূয়া দারোগা পরিচয়দানকারী আসমত আলী চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলার হাটবোয়ালিয়া গ্রামের আবুছদ্দীনের ছেলে। এ ছাড়া ওই ভূয়া দারোগার সহযোগী আলামিন একই জেলার জীবননগর উপজেলার কাশিপুর গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে। গতকাল শনিবার বেলা ১১ টার দিকে দামুড়হুদা বেগোপাড়ার গোলামের মুদি দোকানের সামনে থেকে আটক করে স্থানীয় জনগন। খবর পেয়ে দামুড়হুদা মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই জিয়া উদ্দীন ঘটনাস্থলে পৌছে তাদেরকে থানায় নিয়ে যান। সন্ধ্যায় তাদের পরিবারের লোকজনের কাছে জিম্মায় ছেড়ে দেয় পুলিশ। 
অভিযোগকারী মুদিদোকানি মনির বলেছেন, ওই দুজন দোকানে এসে বলে তোমরা কি সিগারেট বিক্রি করছো ? দাম বেশী নেয়া হচ্ছে শুনলাম। এ সময় তারা জোর করে দোকানের মধ্যে ঢুকে ড্রয়ার চেক করে। বলে ড্রয়ারে মেয়াদ উত্তীর্ণ সিগারেট আছে। অপর মুদিদোকানি গোলাম বলেছেন, তারা আমার দোকানে এসে বলে তোমার কাছে বেনসন বা গোল্ডলিফ সিগারেট আছে। আমি বলি না আমার কাছে বেনসন, গোল্ডলিফ নেই। তবে ডারবী আছে। তখন দুজনের মধ্যে একজন বলে আমার কাছে অভিযোগ আছে তোমরা সিগারেটের নাম বেশী নিচ্ছো। তখন আমি তাদের পরিচয় জানতে চাইলে আসমত আলী নিজেকে পুলিশের দারোগা পরিচয় দেয়। ওই দুজনের মধ্যে একজনের চোখ কানা দেখে সন্দেহ হলে স্থানীয় লোকজন এসে তাদের আটক করে। 
দামুড়হুদা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল খালেক জানান, তারা ওই দোকানে সিগারেট কিনতে যায়। বেসনস সিগারেট ১৬ টাকা চাওয়া কেন্দ্রে করে ওই ঘটনার সূত্রপাত। স্থানীয়ভাবে কেউ লিখিত অভিযোগ না করায় তাদের পরিবারের লোকজনের কাছে জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

0 comments: