Thursday, May 21, 2020

করোনার ওষুধ ‘রেমডিসিভির’ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করলো বেক্সিমকো

করোনাভাইরাস আক্রান্ত মুমূর্ষ রোগীদের চিকিৎসায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে এক হাজার ‘রেমডিসিভির’ ওষুধ দিয়েছে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যাল।
বৃহস্পতিবার দুপুরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের কাছে ওষুধগুলো হস্তান্তর করেন বেক্সিমকো ফার্মার ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল হাসান পাপন।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী কোভিড-১৯ চিকিৎসায় বাংলাদেশের কোনো প্রতিষ্ঠান প্রথম কোনো ওষুধ হস্তান্তর করায় বেক্সিমকো ফার্মাকে ধন্যবাদ জানান।
তিনি বলেন, ‘বিশ্বের বহু দেশ কোভিড-১৯ চিকিৎসায় ওষুধ আবিষ্কারের চেষ্টা করছে। বাংলাদেশ থেকেও ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর ছয়টি কোম্পানিকে কোভিড-১৯ চিকিৎসার ওষুধ প্রস্তুত করতে প্রাথমিকভাবে অনুমতি দিয়েছে। এ ওষুধগুলো আরও ভালোভাবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার পরই বাজারজাত করতে হবে।’
উপযুক্ত পরীক্ষা ছাড়া উৎপাদিত ওষুধগুলো এখনই বাজারজাত করা যাবে না উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে আরও অনেক ধরনের ওষুধের নাম চলে আসে। কিন্তু বাংলাদেশসহ এখন পর্যন্ত বিশ্বের কোনো দেশই শতভাগ কার্যকর ওষুধ আবিষ্কার করতে পারেনি। তবে আমাদের পক্ষ থেকে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চলমান রয়েছে।’
আমেরিকায় উৎপাদিত ‘রেমডিসিভির’ ওষুধের ন্যায় বাংলাদেশের বেক্সিমকো ফার্মা কর্তৃক উৎপাদিত ওষুধের নাম ‘বেমসিভির’ করা হয়েছে।
এ ওষুধ আপাতত সরকারি হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসারত ঝুঁকিপূর্ণ কোভিড-১৯ রোগীদের শরীরে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রবেশ করানো হতে পারে। একই সাথে এ ওষুধ এখনই বাজারজাত করা হবে না বলেও জানান বেক্সিমকো ফার্মার ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল হাসান পাপন।
স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, “সব ওষুধই কিছু না কিছু কাজ করে। তবে কোনো ওষুধই শতভাগ কাজ করে না। ডাক্তাররা তাদের প্রটোকলে কিছু ওষুধ নিয়েছেন। আশা করি, এ ওষুধটাও তারা নিয়ে যাবেন।
স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব আসাদুল ইসলাম, বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল হাসান পাপন সেখানে ছিলেন।

0 comments: