Sunday, May 10, 2020

দামুড়হুদায় লটারির মাধ্যমে সরকারিভাবে ধান ক্রয় কার্যক্রমের উদ্বোধন

দামুড়হুদায় লটারির মাধ্যমে সরকারিভাবে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে বোরোধান ক্রয় কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল রোববার বেলা ১১ টার দিকে দামুড়হুদা উপজেলা চেয়ারম্যান আলি মুনছুর বাবু প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ধান ক্রয় কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। এ উপলক্ষে উপজেলা পরিষদ সভাক্ষে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম মুনিম লিংকনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন দামুড়হুদা উপজেলা চেয়ারম্যান দর্শনা পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলি মুনছুর বাবু। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক রেজাউল ইসলাম, উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মনিরুজ্জামান, উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মশিউর রহমান, উপজেলা প্রশাসনিক কর্মকর্তা জিন্নাত আলী, কুড়ুলগাছি ইউপি চেয়ারম্যান শাহ মোহা: এনামুল করীম ইনু, উপজেলা খাদ্য পরিদর্শক দেলোয়ার হোসেন, ভারপ্রাপ্ত খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান, উপ খাদ্য পরিদর্শক তারিকুর রহমান, সহ উপ খাদ্য পরিদর্শক শামসুল আলম চপল প্রমুখ। 
প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা চেয়ারম্যান আলি মুনছুর বাবু বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে সারাবিশ্বে খাদ্য ঘাটতির আশঙ্কা রয়েছে। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন বসতবাড়িসহ এক ইি  জায়গাও যেন খালি পড়ে না থাকে। তাছাড়া দেশে যে পরিমান ধান উৎপাদন হয়েছে তাতে আমাদের খাদ্য ঘটাতি হওয়ার সম্ভবনা নেই। তারপরও সরকার সর্বোচ্চ গুরত্ব দিয়ে পরিস্থিতি মোকাবেলা করছেন। তিনি আরও বলেন, প্রকৃত কৃষকদের কাছ থেকেই ধান ক্রয় করা হবে। এখানে মধ্যস্বত্তভোগিরা যেন কোন সুযোগ নিতে না পারে সেটা খেয়াল রাখতে হবে।
উপজেলার ৮ টি ইউনিয়ন ও ১ পৌরসভাকে ৯ টি বুথ হিসেবে প্রতিটি বুথকে ৩ টি ব্লকে ভাগ করে মোট ২৭টি ব্লাকে মোট ৮ হাজারেরও অধিক সংখ্যক ধানচাষিদের তালিকা গ্রহন করা হয়। এরমধ্যে ১০৭১ জন ধানচাষিকে লটারির মাধ্যমে বাছাই করা হয়। এ বছর প্রতিকেজি ধানের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২৬ টাকা।  প্রত্যেক চাষি সর্বোচ্চ ২৫ মন অর্থাৎ এক হাজার কেজি ধান সরাসরি বিক্রি করতে পারবেন বলে জানান উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা

0 comments: